পরিশ্রমী পাঁচুর কাহিনী

পরিশ্রমী পাঁচুর কাহিনী

 

ঢাকা ১০ জানুয়ারি ২০১৭ (গ্লোবটুডেবিডি):
মো. জাভেদ হাকিম: হুট করেই একদিন রওনা দেই তেওতা জমিদার বাড়ী। আরিচা হাইওয়ে রোড ধরে গাড়ী চলছে জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয়ের পাশ কেটে-স্মৃতি সৌধ পিছনে ফেলে ফাঁকা রাস্তায় চালকের ইচ্ছে মত গতিতে। নবীনগর থেকেই যেন সবুজে মোড়ানে মায়াবী পথের শুরু । ঢাকা জেলার শেষ সিমান্ত ধামরাইয়ের নির্মল বাতাসে, কাঁচা-পাকা ফসলের ঘ্রাণ শুকতে শুকতে আমরা এগিয়ে যাই কালের সাক্ষী পাচুর বাড়ীর খোঁজে । মানিকগঞ্জের ঘিওর উপজেলার বানিয়াজুরী যেতেই দেখি পথের পাশে এক চা’য়ের দোকানি গরুর দুধের চা বানাতে ব্যস্ত। গাড়ী ব্রেক। গরুর দুধের চা বলে কথা। ‘এই মামা বানাও কয়েক কাপ, সাথে দাও মলাই।’ দোকানির হাসি মাখা আপ্যায়ণ আর কাপ-চামুচের টুংটাং শব্দ শেষে চা’য়ে দেই চুমুক। আহ কী স্বাদ, এক্কেবারে খাঁটি দুধের চা। মনে থাকবে-রে ছৈয়াল বহু দিন তোর চা’য়ের কথা। ধন্যবাদ জানিয়ে বিদায় ।
গাড়ী বামে চলে যায় মানিকগঞ্জ শহর আর আমরা চলি সোজা পথে। শিবালয় উপজেলার আরিচা ঘাটের কাছা কাছি গিয়ে প্রমত্তা যমুনা নদীর তীর ঘেঁষে উত্তর দিকে চলে যাই তেওতা গ্রামের দিকে। গ্রামে ঢুকতেই এক অন্যরকম ভালোলাগা ভর করে মনে। জড়া-জীর্ণ  বাড়ির বিশাল আঙ্গিনায় দাড়িঁয়ে হারিয়ে যাই জমিদারদের অতীত ইতিহাসে। পাশেই ঘাটলা বাধাঁ পুকুর, মাঝে নজরুর-প্রমীলা সড়ক। ইতিহাসবিদদের মতে সতেরশ শতকে নির্মীত হয়েছে বাড়ীটি। আমরা বাড়ীর ভিতর-বহির ঘুরে ঘুরে দেখি। দেশের প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহি পুরাকীর্তি স্থাপনা গুলোর মধ্যে এটি অন্যতম নিদর্শণ। বাড়ীর প্রতিষ্ঠাতা পাঁচুর উত্তরাধীকার জমিদার শ্যামশংকর রায় বাড়ীর আঙিনায় পূজা উৎসবের জন্য নবরতত্ন মঠটি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। এই তেওতা গ্রামটি কবি নজরুল ইসলামের আগমনের জন্যও বেশ পরিচিত। জাতীয় কবি এখানে বেশ কয়েকবার এসেছিলেন। তবে প্রথমেই জেনে নেই বাড়ীর প্রতিষ্ঠাতা পাঁচুর গল্প।পাঁচুর ভালো নাম পঞ্চানন সেন। জনশ্রুতি রয়েছে পিতৃহারা পাঁচুর মা বিভিন্ন বাড়ীতে কাজ করে ছেলেকে নিয়ে দিনানিপাত করত। মা আদর করে পঞ্চাননকে পাঁচু বলে ডাকতেন।একদিন ছেলে মাছ খাওয়ার বায়না ধরে-মমতাময়ি মা, ছেলের আবদার রাখতে গিয়ে জেলের কাছ থেকে দুই পয়সা বাকিতে মাছ ক্রয় করেন।কথা ছিল দুপুরের মধ্যে দুই পয়সা পরিশোধ করবেন।কিন্তু পয়সা জোগাড় হল না।দুপুরে জেলে এসে হাজির।বকেয়া পরিশোধ করতে না পারার কারনে কঠিন হৃদয়ের জেলে রান্না করা মাছই নিয়ে গেল। দুঃখে বাল্য বয়সের পাঁচু যমুনার ওপার গোয়ালন্দ গিয়ে এক বড় ব্যবসায়ীর গদীতে কাজে লেগে যায়।এরপর কর্মঠ পঞ্চানন সেন নিজ দÿতায় বড় তামাক ব্যবসায়ী হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করেন।গড়ে তুলেন দিনাজপুরে জমিদারি।এর পর নিজ জম্ম ভূমিতে তেওতা ফিরে গ্রামে এসে মা’য়ের নামে অনেক জমি কেনেন।প্রতিষ্ঠা করেন তেওতা গ্রামের প্রথম জমিদারি।জমিদারি বিস্তৃত ছিল ঢাকা জেলা, ফরিদপুর ও পাবনা জেলার অনেকাংশ জুড়ে।পরবর্তী জমিদার শ্যামশংকর ও হেম শংকর নামক দুই ভাইয়ের বসতিও ছিল এই বাড়ীটি। মূল ভবনে মোট ৫৫ টি ঘর রয়েছে। দে-ছুট ভ্রমণ সংঘ’র বন্ধুরা অনুসন্ধানী দৃষ্টি নিয়ে একেবারে বাড়ীর ছাদে গিয়ে উঠে। ভবনের অবস্থা এতটাই শোচণীয় -যে কোন সময় তা ধসে পড়তে পারে।এরকম একটি ঐতিহাসিক স্থাপনার এমন করুণ দশা দেখে মনটাই খারাপ হয়ে গিয়েছিল। এই বাড়ীর জমিদার কিরণ শঙ্কর রায়ের আমন্ত্রণে কবি এখানে আতিথি হয়ে এসেছিলেন। প্রণয় সত্রে এই গ্রামের মেয়ে প্রমীলার সাথে সংসার বেঁেধছিলেন। বৃটিশ সরকার একবার কবির বরিুদ্ধে হুলিয়া জারী করলে তিনি এই তেওতা গ্রামেই আত্মগোপন করেন। নজরুল গবেষক রফিকুল ইসলামের গবেষণায় জানা যায় কবি এই তেওতা গ্রামের জমিদারের পুকুর পাড়ে ‘লিচু চোর’ কবিতা সহ আরো অনেক কবিতা ও গান রচনা করেছেন। জমিদার বাড়ীর গানের আসরে প্রমীলাকে উদ্যেশ্য করে “তুমি সুন্দর তাই চেয়ে থাকি” কালজয়ী এই গানটিও গেঁথে ছিলেন। তেওতা গ্রামের মানুষ গুলোর নিকট কবি বেশ প্রিয় ছিলেন। তেওতা’র বংশ পরস্পরায় জমিদার গণরা বেশ প্রজা হৈতষী ও বিভিন্ন সমাজ গঠনমূলক কর্মকান্ডে তাঁদের বেশ অবদান রেখেছেন। নিজ কর্মচারীদের প্রতিও ছিল তাঁদের উদার মানসিকতা। ইতিহাসের উজ্জল সাক্ষী এই তেওতা জমিদার বাড়ী নব প্রজম্ম’দের জন্য সংস্কার ও সংরÿণ এখন সময়ের দাবী।
তাহলে বন্ধুরা আর দেরী কেন ? দিনে দিনে ঘুরে আসুন যমুনার কোলে নজরুল স্মৃতি বিজরীত তেওতা জমিদার বাড়ী থেকে। কথা দিচ্ছি – সব মিলিয়ে অসাধরণ কিছু ভালো লাগার মুহুর্তের সুখ স্মৃতি নিয়েই ঘরে ফিরবেন।
যোগাযোগঃ- নিজস্ব বা ভাড়া করা গাড়ীতে গেলে সুবিধা বেশী হবে। যখন ইচ্ছে তখন গাড়ী থামিয়ে যে কোন কিছুর আনন্দ শেয়ার করা যাবে। এছাড়া গাবতলী [মিরপুর] আন্তঃজেলা বাস টার্মীনাল হতে যাত্রীসেবা,বি আর টি সি,পদ্মালাইন সহ বিভিন্ন পরিবহনে আরিচা ঘাট।ভাড়া ৬০-৮০ টাকা।আরিচা ঘাট হতে অটো বা রিক্সায় যাওয়া যাবে পাচুঁর নির্মীত তেওতা জমিদার বাড়ী।
ছবিঃ- দে-ছুট ভ্রমণ সংঘ

Share Button
Previous বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা
Next ফিফার সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার জিতলেন রোনালদো

You might also like

০ Comments

No Comments Yet!

You can be first to comment this post!

Leave a Reply