প্রধানমন্ত্রীর বক্ত‌ব্য আত্মতুষ্টি ও আত্মস্তুতিতে ভরা: ফখরুল

প্রধানমন্ত্রীর বক্ত‌ব্য আত্মতুষ্টি ও আত্মস্তুতিতে ভরা: ফখরুল

ঢাকা ১৩ জানুয়ারি ২০১৭ (গ্লোবটুডেবিডি): জাতির উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রীর‌ দেওয়া বক্তব্য‌কে গতানুগ‌তিক অভিহিত ক‌রে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, তার (প্রধানমন্ত্রী) বক্তব্য আত্মতুষ্টি ও আত্মস্তুতিতে ভরা।

রাজ‌নৈ‌তিক সংকট নিরস‌নের জন্য প্রধানমন্ত্রীর বক্ত‌ব্যে কিছু না থাকায় জা‌তি হতাশ হ‌য়ে‌ছে ব‌লেও মন্তব্য ক‌রেন তি‌নি।

বৃহস্পতিবার রাতে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক প্রতিক্রিয়ায় তিনি এ মন্তব্য করেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, প্রধানমন্ত্রী উন্নয়নের যে ফিরিস্তি তার ভাষণে দিয়েছেন তার অনেক কিছুই ভুল, অসত্য, ভিত্তিহীন এবং এতে রয়েছে এন্তার শুভঙ্করের ফাঁকি। দেশের মানুষ তাদের দৈনন্দিন অভিজ্ঞতায় বোঝেন দেশ উন্নয়ন নাকি অবনতির পথে এগুচ্ছে। সরকার একটি ধারাবাহিকতা। বৈধ কিংবা অবৈধ সব সরকারকেই সেই ধারাবাহিকতা বজায় রাখার জন্য কিছু কাজ করতে হয়। কিছু উন্নয়ন প্রকল্প হাতে নিতে হয়। জাতীয় উন্নয়নের চিত্র হিসেবে সেসবের ফিরিস্তি দিলে মানুষ হতাশ হয় বলে আমরা মনে করি।

একতরফা দোষারোপের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর ভাষণে প্রচ্ছন্নভাবে অগণতান্ত্রিক ও একদলীয় মানসিকতাই ফুটে উঠেছে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

বিএনপির এই নেতা বলেন, হামলা-মামলা, জেল-জুলুমে বিপর্যস্ত বিরোধী দলগুলো সব গণতান্ত্রিক অধিকার থেকে বঞ্চিত। ডেমোক্রেটিক স্পেস প্রতিদিন সংকুচিত হচ্ছে। নির্বাচনী ব্যবস্থা সম্পূর্ণ ধ্বংস হয়ে গেছে। দুর্নীতি, লুণ্ঠন অবাধে চলছে। ব্যাংকগুলো ও শেয়ারবাজার লুট হয়ে গেছে। জনজীবনে নিরাপত্তা নেই, সুবিচার ও আইনের শাসন নেই, শিক্ষার মান নেমে গেছে। আয়ের বৈষম্য বেড়েছে। শিশুদের পাঠ্যপুস্তক ভুলে ভরা। গুম, খুন, অপহরণ, শিশু হত্যা, নারী ধর্ষণ নিত্যকার ঘটনা। প্রধানমন্ত্রী সবকিছু সুকৌশলে এড়িয়ে গেছেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, রাষ্ট্রীয় ও শাসক দলীয় সন্ত্রাসে সারাদেশে আজ ভীতিকর অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে। বিরোধী দলের কর্মসূচিতেও তারা একের পর এক হামলা ও অন্তর্ঘাতের ঘটনা ঘটিয়ে চলেছে। অথচ প্রধানমন্ত্রী এর জন্য বিরোধী দলকে দায়ী করে অসত্য বক্তব্য দিয়েছেন। সরকারের বৈধতা ও নৈতিকতার সংকট দেশের প্রধান সমস্যা। অথচ প্রধান সেই রাজনৈতিক সংকট তিনি এড়িয়ে গেছেন।

গণতন্ত্র ও সমঝোতার পক্ষে বিএনপির অবস্থান পুনর্ব্যক্ত করে মির্জা ফখরুল বলেন, সবার আশা ছিল, তিনি দেশে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনা ও সুষ্ঠু নির্বাচনের লক্ষ্যে একটি রাজনৈতিক সমঝোতার আভাস দেবেন। প্রধানমন্ত্রীর ভাষণে তা না থাকায় এ বক্তব্য সময়ের চাহিদা মেটাতে সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে। দেশবাসী এ ভাষণে সম্পূর্ণ হতাশ হয়েছেন, আমরাও হতাশ হয়েছি

Please follow and like us:
Previous নির্দিষ্ট মেয়াদ শেষে নির্বাচন : প্রধানমন্ত্রী
Next ৪ মেরে সাকিবের দ্বি-শতক পূর্ণ

You might also like

০ Comments

No Comments Yet!

You can be first to comment this post!

Leave a Reply