শীর্ষ সন্ত্রাসীকে পুলিশের জিম্মায় দিয়ে রেহাই পেলেন আইনজীবী !
June 7, 2017 548 Views

শীর্ষ সন্ত্রাসীকে পুলিশের জিম্মায় দিয়ে রেহাই পেলেন আইনজীবী !

ঢাকা ৭ জুন ২০১৭ (গ্লোবটুডেবিডি): চট্টগ্রামের তালিকাভূক্ত শীর্ষ সন্ত্রাসী আব্দুল কুদ্দুস কসাইকে জামিন না দিয়ে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছিলেন হাইকোর্ট। তবে তার আইনজীবীরা বিভ্রান্তি সৃষ্টি করে আসামিকে ছাড়িয়ে চলে যাওয়ার সুযোগ সৃষ্টি করেন। এমন পরিস্থিতিতে আসামিকে পুলিশের জিম্মায় দিতে ব্যর্থ হলে মামলা সংশ্লিষ্ট কনিষ্ঠ আইনজীবী রেজাউল করিমকে আসামির বদলে কারাগারে যাওয়ার জন্য প্রস্তুত থাকতে বলা হয় আদালতের পক্ষ থেকে।
মঙ্গলবার বিচারপতি মো. মিফতাহ উদ্দিন চৌধুরী ও বিচারপতি এ এন এম বসির উল্লাহ’র হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আদেশ দেন।
এদিকে শীর্ষ সন্ত্রাসী আব্দুল কুদ্দুস কসাইকে জামিন না দিয়ে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেয়ার পর আদালত পুলিশকে বিভ্রান্ত করে ছাড়িয়ে নেয়ায় আসামির আইনজীবীদের এজলাসকক্ষে আটকে থাকতে হয়েছে। পরে আসামিকে ডেকে এনে পুনরায় পুলিশের জিম্মায় দিলে আদালতকক্ষ ত্যাগের অনুমতি পান আসামির আইনজীবীরা।
ওই কোর্টের ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল শেখ এ কে এম মনিরুজ্জামান কবির সাংবাদিকদের বলেন, চট্রগ্রামের শীর্ষ সন্ত্রাসী আব্দুল কুদ্দুস একটি হত্যা চেষ্টা মামলায় আদালতে আগাম জামিন নিতে এসেছিল। কিন্তু আদালতে তাকে জামিন না দিয়ে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেয়। আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী দায়িত্বরত পুলিশ আসামিকে কারাগারে পৌঁছানোর ব্যবস্থা করার সময় আসামির আইনজীবী আব্দুল বাসেত মজুমদার পুলিশকে বিভ্রান্ত করে শীর্ষ এই সন্ত্রাসীকে ছাড়িয়ে নিয়ে আদালত চত্বর ত্যাগ করতে বলেন।
ছাড়িয়ে নেয়ার বিষয়টি তাৎক্ষণিকভাবে আদালতের নজরে আনলে আদালত বাসেত মজুমদারকে তলব করেন। সঙ্গে সঙ্গে আইনজীবী বাসেত মজুমদার এজলাস কক্ষে হাজির হলে কোর্ট তাকে ভর্ৎসনা করেন এবং দ্রুত সময়ের মধ্যে আসামিকে পুলিশের জিম্মায় দিতে বলেন।
পুলিশের জিম্মায় দিতে ব্যর্থ হলে মামলা সংশ্লিষ্ট কনিষ্ঠ আইনজীবী রেজাউল করিমকে আসামির বদলে কারাগারে যাওয়ার জন্য প্রস্তুত থাকতে বলা হয়।এরকম পরিস্থিতিতে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি জয়নুল আবেদীন এবং সম্পাদক মাহবুব উদ্দিন খোকন আদালত কক্ষে এসে বাসেত মজুমদারের পক্ষে ঘটনার জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করেন এবং আসামিকে হাজির করার প্রতিশ্রুতি দেন।
প্রতিশ্রুতি দেওয়ার প্রায় আধা ঘণ্টা পর আসামিকে ডেকে এনে আদালত পুলিশের হাতে তুলে দিলে তিনি এজলাসকক্ষ থেকে বের হওয়ার অনুমতি পান আসামির আইনজীবীরা।
পরে আদালত পুলিশ আসামি আব্দুল কুদ্দুস কসাইকে শাহবাগ থানা পুলিশের হাতে সোপর্দ করেন।
মামলার বিররণ থেকে জানা যায়, চট্টগ্রামের বায়েজিত বোস্তামী থানার ব্যবসায়ী নাজিমুদ্দিনকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করেন। এ ঘটনায় চলতি বছরের ১২ এপ্রিল বায়েজিত বোস্তামী থানায় শীর্ষ এই সন্ত্রাসীসহ ২৮ জনকে আসামি করে মামলা করা হয়। এ ঘটনায় জামিন নিতে এসেছিলেন আসামি আব্দুল কুদ্দুস কসাই।
স্থানীয় যুব সংগঠক কর্মী মেহেদী হাসান বাদল হত্যা মামলারও আসামি মাদক ব্যবসায়ী ও শীর্ষ সন্ত্রাসী হিসেবে পরিচিত আব্দুল কুদ্দুস কসাই।

Please follow and like us:
Previous এবার সিপিডিকে রাবিশ বললেন মুহিত
Next বিচারপতি ও কূটনীতিকদের সম্মানে প্রধানমন্ত্রীর ইফতার

You might also like

০ Comments

No Comments Yet!

You can be first to comment this post!

Leave a Reply