গর্ভাবস্থায় নারী দেহে পরিবর্তন

গর্ভাবস্থায় নারী দেহে পরিবর্তন

৫ অক্টোবর ২০১৭ (গ্লোবটুডেবিডি): গর্ভাবস্থায় নারী দেহে কিছু গুরুত্বপূর্ণ শারীরবৃত্তীয় পরিবর্তন সাধিত হয়। এ সময় পিটুইটারি থাইরয়েড ও অ্যাডরিনাল গ্রন্থির কর্মকাণ্ড বৃদ্ধি পায়। ফলে বিভিন্ন ধরনের প্রোটিন ও স্টেরয়েড হরমোন তৈরি হয়। এর প্রভাবে নিম্নলিখিত সমস্যাগুলো দেখা দেয়-

রঙের পরিবর্তন
– গর্ভবতী মায়ের স্তনের বোঁটা ও তার আশপাশের ত্বক কালচে রঙের হয়।
– কিছুসংখ্যক ক্ষেত্রে বোগল ও উরুতেও এ ধরনের পরিবর্তন দেখা যায়।
– ৫০ শতাংশ ক্ষেত্রে মুখে মেছতা হয়।
– সন্তান প্রসবের কিছু দিনের মধ্যে স্তনের পরিবর্তিত রঙ আবার আগের অবস্থায় ফিরে আসতে থাকে।

চুলের পরিবর্তন
অনেক ক্ষেত্রেই গর্ভবতীর মুখে সামান্য পরিমাণ বা তার চেয়ে কিছু বেশি পরিমাণের অবাঞ্ছিত লোম গজাতে দেখা যায় যা সাধারণত প্রসবের পর কমে যায়। তবে জটিল গর্ভাবস্থায় সৃষ্টি হলে কিংবা অপারেশনের মাধ্যমে প্রসব করিয়ে থাকলে অস্বাভাবিক রকমের শারীরিক বা মানসিক চাপের কারণে কোনো কোনো ক্ষেত্রে প্রসবের এক থেকে পাঁচ মাসের মধ্যে প্রচুর পরিমাণ চুল পড়তে থাকে। তবে এ ক্ষেত্রে চুল পড়ে গেলেও আবার স্বাভাবিক অবস্থায় তা ফিরে আসে।

ত্বক ফেটে যাওয়া
গর্ভাবস্থায় ত্বকের ওপর চাপ পড়ে। পেট বড় হওয়ার কারণে ত্বক প্রসারিত হতে থাকে। একপর্যায়ে যখন আর প্রসারণ ঘটার ক্ষমতা থাকে না। তখন ত্বকে ফাটল ধরে। এই অবস্থাটাকে বলা হয় Striate Distensae ৯০ শতাংশ গর্ভবতীর ক্ষেত্রে এই অবস্থার সৃষ্টি হয়ে থাকে।

ত্বকে ফুসকুড়ি
এ ক্ষেত্রে গর্ভবতীর পেটে লালচে দানা দেখা দেয়। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে গর্ভবতীর শেষ মাসে এটি হয়ে থাকে। এই দানাগুলো এক হয়ে মিশে গিয়ে পুরো স্থানেই একটা লালচে ভাব সৃষ্টি করে। এতে থাকে অস্বাভাবিক রকমের চুলকানি। এ অবস্থায় রাতে গর্ভবতী ঘুমাতে পারে না চুলকানির কারণে। কখনো কখনো চুলকানির ফলে রস বেরোতে থাকে। সাধারণভাবে এটি প্রসবের পরপরই ভালো হয়ে যায়। ত্বকের আরেকটি অবস্থার নাম প্রুরিগো গ্রাভিডেরাম। এটি লিবারের সমস্যার কারণে হয়ে থাকে।

এ ক্ষেত্রে গর্ভাবস্থায় শেষের দিকে সারা শরীরে দারুণ চুলকানি শুরু হয় এবং সেই সাথে জণ্ডিস দেখা দেয়। প্রথম দিকে যে চুলকানি হয় তা শুধু রাতে হয়ে থাকে। প্রথমে শরীরের নির্দিষ্ট অংশে শুরু হলেও পরে সারা শরীরে তার বিস্তার ঘটে। এর সাথে বমি ভাব ও শারীরিক দুর্বলতা থাকে। সাধারণত সন্তান প্রসবের কিছু দিন পরপরই এটি ভালো হয়ে যায়। তবে ভবিষ্যতে আবার সন্তানসম্ভবা হলে তখনই একইভাবে একই উপসর্গ নিয়ে রোগটি দেখা দিতে পারে।

লেখক : চর্ম, অ্যালার্জি ও যৌনরোগ বিশেষজ্ঞ
চেম্বার : আলরাজী হাসপাতাল, ১২ ফার্মগেট, ঢাকা।
ফোন : ০১৮১৯২১৮৩৭৮

Share Button
Previous ২০৩০ বিশ্বকাপ যৌথভাবে আয়োজনের পরিকল্পনা তিন দেশের
Next বাহুবলে সাবেক সেনা সদস্যকে কুপিয়ে হত্যা

You might also like

০ Comments

No Comments Yet!

You can be first to comment this post!

Leave a Reply