বাংলাদেশ এখন ‘সাইনিং স্টার’ : জয়

বাংলাদেশ এখন ‘সাইনিং স্টার’ : জয়

ঢাকা ২২ অক্টোবর ২০১৭ (গ্লোবটুডেবিডি):প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় বলেছেন, বাংলাদেশ এখন ‘সাইনিং স্টার’। তাই দেশের উন্নয়নের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখতে আগামী জাতীয় নির্বাচনে আবারো আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় আনার জন্য তরুণদের প্রতি তিনি আহবান জানিয়েছেন। তিনি রবিবার রাজধানীর অদূরে সাভারের শেখ হাসিনা জাতীয় যুব কমপ্লেক্স মিলনায়তনে সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশন (সিআরআই)’র তারুণ্যের প্লাটফর্ম ইয়ং বাংলার উদ্যোগে দেয়া জয়বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড-২০১৭ প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ আহবান জানান।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সিআরআইয়ের ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য ও বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বীপু । এ সময় সিআরআইয়ের ট্রাস্ট্রি বোর্ডের সদস্য রাদওয়ান মুজিব সিদ্দিক ববি উপস্থিত ছিলেন।

সিআরআইয়ের ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান সজীব ওয়াজেদ জয় বলেন, ‘আমরা উন্নত দেশের উদাহরণ হিসেবে মালয়েশিয়ার কথা বলে থাকি। সে দেশটিকে যে রাজনৈতিক দল স্বাধীন করেছিল সে দলটিকে তাঁরা ২০ বছর ক্ষমতায় রেখেছিল।’ তিনি বলেন, ‘আর আওয়ামী লীগ এবারই প্রথমবারের মত টানা দ্বিতীয়বারের মত দেশ পরিচালনা করছে। আর এ আট বছরে দেশে অভাবনীয় উন্নয়ন হয়েছে। বাংলাদেশ নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হয়েছে। স্বাধীনতার পক্ষের শক্তি আবার ক্ষমতায় এলে দেশ আরো উন্নত হবে। যারা স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে না তাদের দেশপ্রেম নেই। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার আগে সারা বিশ্বে বাংলাদেশ দুর্নীতিতে পাঁচবার চ্যাম্পিয়ান হয়েছিল এবং একটি জঙ্গীবাদী রাষ্ট্র হিসেবে পরিচিত পেয়েছিল। তিনি বলেন, বিএনপি-জামায়াতের শাসনামলে বাংলাদেশকে একটি ব্যর্থ রাষ্ট্র হিসেবে উল্লেখ করা হতো এবং যে পাকিস্তানকে আমরা যুদ্ধ করে পরাজিত করেছি তাদের সাথে দেশকে তুলনা করা হতো। বর্তমান সরকারের সফল নেতৃত্ব দেশের সমন্বিত উন্নয়নে বাংলাদেশকে এখন বলা হচ্ছে সাইনিং স্টার। নেক্সট ইলেভেন অর্থনীতির দেশের মধ্যে আমরাও একটি।

তিনি বলেন, কিন্তু বাংলাদেশ মিয়ানমার থেকে আশা রোহিঙ্গাদের জন্য দরজা খুলে দিয়েছে। বাংলাদেশ সাহায্যের জন্য কারো কাছে হাত পাতে নি। কোন বিশ্ব সংস্থার কাছে সাহায্যও চায়নি। এটাই হচ্ছে আমাদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় অর্জিত আত্মবিশ্বাস। আমাদের আত্মবিশ্বাসের জন্যই নিজেদের অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ করতে সমর্থ হচ্ছি। বিশ্বব্যাংক ভেবেছিল, তাদের অর্থায়ন বাতিল করলে আমরা তাদের কাছে মাথানত করবো। আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে দেশ স্বাধীন হয়েছে। আর স্বাধীনতার শক্তি কারো কাছে মাথানত করে না। তিনি বলেন, স্বাধীনতার চেতনা কখনো ভুলবেন না এবং ভবিষ্যত প্রজন্মকেও ভূলতে দেবেন না। কারণ আপনাদের নেতৃত্বেই বঙ্গবন্ধু স্বপ্ন বাস্তবায়িত হবে।

বিএনপি-জামায়াত দেশের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস মুছে ফেলার ষড়যন্ত্র করেছিল উল্লেখ করে তিনি বলেন, বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া মুক্তিযুদ্ধে শহীদ ৩০ লাখ শহীদের সংখ্যা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। এর চেয়ে লজ্জার আর কিছু থাকতে পারে না। বিএনপি-জামায়াত যাতে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস নিয়ে মিথ্যাচার করতে না পারে সেজন্য তরুণদের দায়িত্ব পালন করতে হবে। কারণ যে জাতি নিজের ইতিহাস ভূলে যায় সে জাতির কোনো ভবিষ্যত নেই। তিনি বলেন, দেশের ছেলে মেয়েরা নিজেদের উদ্যোগে নিজেদের কমিউনিটির উন্নয়নের জন্য কাজ করছে। তাঁরা নিজ উদ্যোগে যেভাবে দেশের মানুষের জন্য কাজ করছে তা আগে দেখা যেত না।

তিনি বলেন, বিএনপি চায়নি দেশ স্বাধীন হোক। আর সেজন্যই তারা দেশের উন্নয়নও চায়নি। সামাজিক সমস্যা মোকাবেলায় সুশীল সমাজের কঠোর সমালোচনা করে বঙ্গবন্ধুর দৌহিত্র জয় বলেন, সামাজিক সমস্যা সমাধানের নামে সুশীল সমাজের নামে এনজিও করে ব্যবসা করেছে আর বিদেশে সফর করেছে এবং টাকা পাচার করেছে।

জয় সামাজিক, সংস্কৃতি ও ক্রীড়া ক্ষেত্রে অসামান্য অবদান রাখায় এ বছর যে ৩০টি সংগঠনের কাছে জয়বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড তুলে দেন।

কমিউনিটি উন্নয়ন, সংস্কৃতি ও ক্রীড়া তিনটি বিভাগে অবদান রাখা ৫০টি সংগঠনের মধ্যে ৩০টি সংগঠনকে নির্বাচিত করা হয়। এ বছর কমিউনিটি উন্নয়নের জন্য ২০টি, সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রে অবদানের জন্য সাতটি এবং ক্রীড়া ক্ষেত্রে অবদানের জন্য তিনটি সংসঠনকে নির্বাচিত করা হয়।

 

Share Button
Previous উত্তর কোরিয়া যুক্তরাষ্ট্রে পরমাণু হামলা সক্ষমতার দ্বারপ্রান্তে: সিআইএ
Next বিতর্কিত গোলে শীর্ষে বার্সা !

You might also like

০ Comments

No Comments Yet!

You can be first to comment this post!

Leave a Reply