এম কে আনোয়ারের সাহস, সততা ও নিষ্ঠা ছিল ঈর্ষণীয়: খালেদা

এম কে আনোয়ারের সাহস, সততা ও নিষ্ঠা ছিল ঈর্ষণীয়: খালেদা

ঢাকা ২৫অক্টোবর ২০১৭ (গ্লোবটুডেবিডি): বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য, সাবেক এমপি-মন্ত্রী ও কেবিনেট সচিব এবং বরেণ্য রাজনীতিবিদ এম কে আনোয়ারের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দু:খ প্রকাশ করেছেন বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া।

মঙ্গলবার এক শোকবাণীতে তিনি বলেন, দেশের বরেণ্য রাজনীতিবিদ এম কে আনোয়ারের মৃত্যুতে তার পরিবারবর্গের মতো আমিও গভীরভাবে শোকাহত ও ব্যথিত হয়েছি। আমি তার রুহের প্রতি জানাই গভীর শ্রদ্ধা। সজ্জন, মিতবাক, নিয়মনিষ্ঠ, কথা ও কাজে অসাধারণ সামঞ্জস্য ছিল মরহুম এম কে আনোয়ারের অন্যতম বৈশিষ্ট্য। তার সততা ও নিষ্ঠা ছিল ঈর্ষণীয় উচ্চতায়। সেই কারণেই পেশাগত জীবনে সরকারি সর্বোচ্চ পদে অধিষ্ঠিত থেকেও তিনি তার অমলিন ব্যক্তি-মর্যাদা অক্ষুণ্ণ রাখতে সক্ষম হয়েছিলেন। রাজনৈতিক জীবনেও তিনি নিজ আদর্শে অটল থেকে রাজনৈতিক সংগ্রাম ও জনগণের সেবা করে গেছেন।

বেগম জিয়া বলেন, রাজরোষে পড়া সত্ত্বেও তিনি কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে দ্বিধা করেননি, তাই বারবার কারাবরণসহ নিপীড়ন-নির্যাতন সহ্য করেও নিষ্ঠা ও সাহসিকতার সাথে অগণতান্ত্রিক সরকারের অসদাচরণের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করে গেছেন। জনগণের গণতান্ত্রিক অধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে তিনি কখনোই কোনো অগণতান্ত্রিক শক্তির কাছে মাথানত করেননি। গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের আন্দোলনে সবসময় থেকেছেন সামনের কাতারে। নিজ এলাকায় শিক্ষার প্রসার ও জনকল্যাণমূলক কাজেও তার অবদান স্মরণীয়। তাই জনগণের কাছে প্রদত্ত প্রতিশ্রুতি রক্ষা করার কারণেই আদর্শনিষ্ঠ এম কে আনোয়ার বারবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন।

তিনি বলেন, শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদী দর্শনকে বুকে ধারণ করে এম কে আনোয়ার স্বদেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষার অঙ্গীকারে বিএনপিকে সুসংগঠিত ও শক্তিশালী করার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন। রাজনীতিতে যোগ দিয়ে যখনই গণতন্ত্র বিপদাপন্ন হয়েছে তখনই স্বৈরাচারের কবল থেকে দেশকে গণতন্ত্রের পথে উত্তরণ এবং গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী হিসেবে দেশের উন্নয়নের জন্য এমকে আনোয়ারের গৌরবময় অবদান দেশবাসী ও বিএনপি চিরদিন শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করবে। তার মৃত্যু জাতীয়তাবাদী শক্তির জন্য মর্মস্পর্শী। এম কে আনোয়ারের মৃত্যু দেশবাসী ও দলের জন্য অপূরণীয় ক্ষতি। আমি তার রুহের মাগফিরাত কামনা করছি এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারবর্গ, গুণগ্রাহী, সহকর্মী ও শুভানুধ্যায়ীদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাচ্ছি।

এছাড়া মরহুম এম কে আনেয়ারের মৃত্যুতে শোক জানিয়ে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এক শোকবাণীতে বলেন, বাংলাদেশের রাজনীতি ও জনপ্রশাসনে এম কে আনোয়ার সাহেবের কৃতকর্ম অনেকদিন এদেশের শুভবুদ্ধি মানুষদেরকে অনুপ্রেরণা যোগাবে। হারানো গণতন্ত্র ফিরে পাবার আন্দোলনে এম কে আনোয়ার কখনোই পিছপা হননি। স্বৈরাচারের সব নির্দয় উৎপীড়ণকে সহ্য করেও তিনি তার ওপর অর্পিত রাজনৈতিক দায়িত্ব পালন করেছেন অনঢ় ও দ্বিধাহীনভাবে। অত্যাচারের রক্তচক্ষু তার দৃঢ় মনোবলকে দুর্বল করতে পারেনি। নিজস্ব মতাদর্শে তিনি ছিলেন নির্ভয় ও অবিচল। তার কর্মময় জীবনের সাফল্যের মূলে ছিল আদর্শনিষ্ঠ উদ্যম ও উদ্যোগ। অত্যন্ত বিনয় ও হাস্যোজ্জল অভিব্যক্তির কারণেই মরহুম এম কে আনোয়ার জনগণ ও দলের সব পর্যায়ের নেতাকর্মীদের কাছে ছিলেন শ্রদ্ধেয় ব্যক্তিত্ব। মরহুম এম কে আনোয়ার সমাজসেবা নানা কাজের সাথেও আজীবন যুক্ত ছিলেন। সরকারের মন্ত্রী হিসেবে তার অবদান এদেশের জনগণ কখনোই বিস্মৃত হবে না। তার মৃত্যুতে বাংলাদেশের রাজনীতিতে এক গভীর শুণ্যতার সৃষ্টি হলো। আমি তার মৃত্যুতে গভীর শোক ও দু:খ প্রকাশ করছি।

Share Button
Previous জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষার্থীকে আধা ঘণ্টা আগে হলে ঢুকতে হবে
Next রোহিঙ্গাদের ফেরত নেবে মিয়ানমার!

You might also like

০ Comments

No Comments Yet!

You can be first to comment this post!

Leave a Reply