‘শতাব্দীর সেরা নির্বোধ’

‘শতাব্দীর সেরা নির্বোধ’

২৫ অক্টোবর ২০১৭ (গ্লোবটুডেবিডি): কুমির ধরার খাঁচার মধ্যে ঢুকে সাগরে সাঁতার কেটেছে এক দল অস্ট্রেলীয়। ‘শতাব্দীর সেরা নির্বোধ’ উপাধি পাওয়ার জন্য এ বোকামি করেন চার অস্ট্রেলীয় নাগরিক। তবে ‘উপাধি’ তো কুড়িয়েছে, সঙ্গে গুনতে হয়েছে মোটা অঙ্কের জরিমানা। দেশটির উত্তরাঞ্চলের কুইন্সল্যান্ড রাজ্যের পোর্ট ডগলাসের কাছাকাছি এক উপকূলে কুমিরের খাঁচা বসান তারা এবং এর মধ্যে ঢুকে পড়েন। ফেসবুকে ভিডিও ফুটেজও প্রকাশ করেছেন ওই অস্ট্রেলীয়রা।

কুমির ধরতে এক ধরনের ফাঁদ ব্যবহৃত হয়, যেটায় গোশত ভরে কোনো নির্দিষ্ট অংশে রাখা হয়। দুই সপ্তাহ আগে যে সাগরে এক নারীকে কুমির খেয়ে ফেলেছিল, সেখানেই কুমিরের ফাঁদের ভেতর ঢুকে ভেসে বেড়িয়েছেন ওই চার অস্ট্রেলীয়। তারা এ সময় উল্লাস করেন। ওই এলাকাটি থেকে ১৪ ফুট দৈর্ঘ্যরে একটি কুমির এক নারীকে খেয়ে ফেলে। কুমিরটিকে স্থানীয় প্রশাসন হত্যা করার পর তার পেট থেকে ওই নারীর মৃতদেহের বিভিন্ন অংশ বের করে।

পোর্ট ডগলাসের মেয়র জুলিয়া লিউ এ কাজের সমালোচনা করে বলেন, ‘এটা অবিশ্বাস্য বোকামি এবং ভয়াবহ একটি কাজ। এ পাগলেরা ‘বছর বা শতাব্দীর সেরা নির্বোধ’ হওয়ার লড়াইয়ে নেমেছিল।’ অস্ট্রেলিয়ার উত্তরাঞ্চলে লবণাক্ত পানিতে এ কুমিরগুলো বেশ ভয়ংকর। এগুলোর ওজন এক টনের বেশি হয়।

কুইন্সল্যান্ডের পরিবেশমন্ত্রী স্টিভেন মাইল বলেন, ‘এ ফাঁদগুলো এসব কুমির ধরার জন্য বিশেষভাবে তৈরী করা হয়। এগুলোর ভেতর মাংস ভরে কুমিরকে প্রলোভন দেখানো হয়। যে কোনো সময় কুমির এসে মানুষগুলোকে মেরে ফেলতে পারত। এটা নির্বুদ্ধিতা ও অবৈধ।’ কুমির ধরা খাঁচায় নিজেরাই ওঠে যাওয়ার জন্য ওই চারজনকে ১১ হাজার ৭০০ ডলার জরিমানা করা হয়েছে।

Please follow and like us:
Previous দুর্নীতির দায়ে পিপিএম পদকপ্রাপ্ত ফরিদপুরের এসপিকে প্রত্যাহার
Next লিগ কাপের শেষ আটে চেলসি-ওয়েস্ট হাম

You might also like

০ Comments

No Comments Yet!

You can be first to comment this post!

Leave a Reply