বর্ণিল আয়োজনে বড়দিন উদযাপন

বর্ণিল আয়োজনে বড়দিন উদযাপন

ঢাকা ২৬ ডিসেম্বর ২০১৭ (গ্লোবটুডেবিডি): উৎসাহ-উদ্দীপনা ও বর্ণিল আয়োজনের মধ্যদিয়ে খ্রিস্ট ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শুভ বড়দিন উদযাপিত হয়েছে।
এ উপলক্ষে গির্জাগুলো ফুল, রঙিন কাগজ আর ঝিকিমিকি আলোয় সাজানো হয়। ক্রিসমাস ট্রিতে আলো ঝলমল মালা। বসানো হয় খ্রিস্টের জন্মের ঘটনার প্রতীক গোশালা। সেই সঙ্গে বড়দিনের কেক। সোমবার সোমবার বড়দিন হলেও আগের দিন রোববার রাত থেকেই উৎসবে মেতে উঠেন খ্রিস্টানধর্মাবলম্বীরা।
ওইদিন রাত ১১টার দিকে বিভিন্ন গির্জা ও উপাসনালয়ে প্রার্থনার মধ্য দিয়ে শুরু হয় বড়দিনের উদযাপন। সেখানে মঙ্গলবাণী পাঠের মাধ্যমে নিজের পরিশুদ্ধি এবং জগতের সব মানুষের জন্য মঙ্গল কামনা করা হয়। গতকাল সোমবার বিভিন্ন চার্চে প্রার্থনায় শান্তি ও মঙ্গলের কামনা করার পাশাপাশি বড়দিনে উৎসবের আনন্দেও মেতেছেন তারা।
তেজগাঁওয়ের হোলি রোজারিও চার্চে তিন দফায় প্রার্থনা সভা অনুষ্ঠিত হয়, যেখানে কয়েক হাজার নানা বয়সী মানুষ মিলিত হন। বড়দিনের উৎসবকে ঘিরে বর্ণিল করে সাজানো হয়েছে চার্চ এলাকা। ক্রিসমাস ট্রি আর আলোকসজ্জা ছিল নজরকাড়া। চার্চ প্রাঙ্গণে ঢুকতেই প্রার্থনাকারীদের চোখে পড়ে যিশু কোলে মা মেরির বড় আকারের ভাস্কর্য, যার চরণে প্রণাম জানিয়ে ভক্তরা প্রবেশ করেন ভেতরে। সকাল ৭টায় শুরু হয় প্রথম দফার প্রার্থনা, দ্বিতীয়টি সকাল ৯টায় এবং শেষটি সকাল ১১টায়। সেখানে থাকা সমাধিতে গিয়েও অনেককে মৃতদের জন্য প্রার্থনা করতে দেখা যায়।
বড়দিন উপলক্ষে বাংলাদেশ বেতার ও টেলিভিশনে এবং বেসরকারি টিভি চ্যানেলগুলোতে বিশেষ অনুষ্ঠানমালা প্রচার করা হয়। দিনটি ছিল সরকারি ছুটি। খ্রিষ্টান সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিগণ বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।

শিশুদের মধ্যে বড়দিনের বাড়তি আমেজ ছড়িয়ে দিতে গির্জায় সান্তাক্লজ শিশু-কিশোরদের জন্য বিশেষ উপহার দেন। মা-বাবার হাত ধরে আসা শিশু-কিশোররা চকোলেট, ক্যান্ডি পাওয়ার পাশাপাশি শান্তাক্লজকে পেয়ে বাড়তি আনন্দ উপভোগ করে।
দিনটিতে গির্জা ছাড়াও খ্রিস্টধর্মাবলম্বীদের বাড়ি বাড়ি চলে বিভিন্ন ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠান। তৈরি করা পিঠা ও নানা রকম সুস্বাদু খাবার। বেশ কয়েক দিন আগে থেকেই শুরু হয় উপহার বিতরণ। সন্ধ্যায় আত্মীয়-স্বজন একে অন্যের বাড়িতে উপহার নিয়ে যান। পাশাপাশি মজাদার খাবারের স্বাদ গ্রহণ করেন। এছাড়াও তারকা হোটেলগুলোতেও বড়দিন উপলক্ষ্যে নানা খাবার ও অনুষ্ঠানের আয়োজন ছিল। এভাবেই উৎসাহ আর উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে খ্রিস্টধর্মাবলম্বীরা বড়দিন উদযাপন করেন।

Share Button
Previous অনশনে অসুস্থ হয়ে অর্ধশত শিক্ষক হাসপাতালে ভর্তি
Next শিক্ষামন্ত্রীর বক্তব্যে প্রমাণিত, সরকার আত্মস্বীকৃত দুর্নীতিবাজ : বিএনপি

You might also like

০ Comments

No Comments Yet!

You can be first to comment this post!

Leave a Reply