রোকসানা, ফারিয়া, তামান্নার পর প্রিথুলা

রোকসানা, ফারিয়া, তামান্নার পর প্রিথুলা

ঢাকা ১৩ মার্চ ২০১৮ (গ্লোবটুডেবিডি): ১৯৭৭ সালে বাংলাদেশের প্রথম নারী বৈমানিক হিসাবে বাণিজ্যিক বিমান পরিচালনার সনদ পেয়েছিলেন ক্যাপ্টেন সৈয়দ কানিজ ফাতেমা রোকসানা। ১৯৮৪ সালের ৪ আগস্ট চট্টগ্রাম থেকে একটি ফকার এফ-২৭ নিয়ে ঢাকা বিমান বন্দরে অবতরণের সময় দুর্ঘটনায় প্রাণ হারান তিনি।

বিমানটির ৪৫জন যাত্রী ও চার ক্রূ নিহত হন ওই দুর্ঘটনায়।

এরপর ১৯৯৮ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর ঢাকার পোস্তগোলায় বিমান দুর্ঘটনায় মারা যান আরেক নারী প্রশিক্ষক পাইলট ফারিয়া লারা। ২০১৫ সালের ১ এপ্রিল রাজশাহী বিমান বন্দরে একটি প্রশিক্ষণ বিমান বিধ্বস্ত হয়ে নিহত হন প্রশিক্ষণার্থী পাইলট তামান্না রহমান হৃদি।

সর্বশেষ সোমবার নেপালের ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে ইউ এস বাংলার ফ্লাইট দুর্ঘটনায় মারা যান পাইলট প্রিথুলা রশিদ।

ইউএস বাংলার এই দুর্ঘটনার প্রতিক্রিয়ায় ২০১৫ সালে প্রশিক্ষণ বিমান দুর্ঘটনায় পাইলট কন্যাকে হারানোর কষ্ট আরও প্রকটভাবে জাগ্রত হলো বলে জানালেন নিহত প্রশিক্ষণার্থী পাইলট তামান্না রহমান হৃদির মা রেহানা ইয়াসমিন ডলি। গ্লোবটুডেবিডিকে তিনি বলেন, এধরনের মর্মান্তিক, হৃদয়বিদারক ঘটনাকে আসলে দুর্ঘটনা বলে মেনে নেয়া যায় না। চোখের সামনে আমার কলিজার টুকরা মেয়েকে জ্বলেপুড়ে ছাই হয়ে যেতে দেখেছি, এই কষ্ট কোনদিন কোন কিছুতেই শেষ হবার নয়। অনেক কথাই বলেছিলাম তখন, আরও অনেক কিছুই বলার আছে। কিন্তু কী হবে আর বলে? বুকের কষ্ট বুকেই রয়ে যাবে, কোন প্রতিকার হবে না।

Share Button
Previous কবে বন্ধ কোন শপিং মল
Next সিঙ্গাপুরের ব্যবসায়ীদের ৫০০ একর জমির প্রস্তাব প্রধানমন্ত্রীর

You might also like

০ Comments

No Comments Yet!

You can be first to comment this post!

Leave a Reply