চমক সৃষ্টিকারী শেখ সুজাত ও রেজা কিবরিয়াকে নিয়ে বিপাকে ঐক্যফন্ট!

চমক সৃষ্টিকারী শেখ সুজাত ও রেজা কিবরিয়াকে নিয়ে বিপাকে ঐক্যফন্ট!

 

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি : হবিগঞ্জ -১ (নবীগঞ্জ- বাহুবল) আসনে চমক সৃষ্টিকারী সাবেক সংসদ সদস্য ও জেলা বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি শেখ সুজাত মিয়া ও সাবেক অর্থমন্ত্রী কিবরিয়ার তনয় রেজা কিবরিয়ার প্রার্থীতা নিয়ে বিপাকে রয়েছে জাতীয় ঐক্যফন্ট। এছাড়াও এ আসনে থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী যুক্তরাষ্ট্র শিকাগো বিএনপির সভাপতি শাহ মোজ্জামেল নান্টু ও যুক্তরাজ্য প্রবাসী কমিউনিটি নেতা শেখ মহিউদ্দিন আহমেদ। ২০১১ সালে উপনিবার্চনে ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের প্রার্থীকে পরাজিত করে সারাদেশে চমক সৃষ্টি করেন শেখ সুজাত। অপরদিকে আওয়ামীলীগের সাবেক অর্থমন্ত্রী প্রয়াত অর্থমন্ত্রী শাহ এ এমএস কিবরিয়ার তনয় বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ড. রেজা কিবরিয়া সম্প্রতি গণফোরামে যোগ দিয়ে নিবার্চন করার ঘোষণা দিয়েছেন। এই দুই হেভিওয়েট প্রার্থীকে নিয়ে দ্বিধা-বিভক্ত হয়ে পড়েছে বিএনপির নেতাকর্মীরা।
হবিগঞ্জ-১ আসনটি আওয়ামী লীগের দূর্গ হিসাবে পরিচিত। ২০০৮ সালের নবম সংসদ নির্বাচনে তৃতীয় বারের মত প্রয়াত দেওয়ান ফরিদ গাজী সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ২০১০ সালের ১৯ নভেম্বর দেওয়ান ফরিদ গাজী মৃত্যু বরণ করেন। পরে ২০১১ সালের ২৭ জানুয়ারী এ আসনে উপ-নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দূর্গে প্রথম হানা দিয়ে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি ডাঃ মুশফিক হোসেন চৌধুরীকে মাত্র পরাজিত করে বিএনপির প্রার্থী কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও হবিগঞ্জ জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি আলহাজ¦ শেখ সুজাত মিয়া বিজয়ী হয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকারের অধীনে উপ-নির্বাচনের প্রচারণায় অংশ নেন আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, প্রয়াত সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত, সুলতান মনসুর, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, শিল্পী মমতাজ বেগমসহ কেন্দ্রীয় অনেক নেতা। তারপরও তারা দলীয় প্রার্থীর পরাজয় ঠেকাতে পারেননি। ফলে উপ-নির্বাচনে বিএনপির বিজয় নিয়ে তখন সারাদেশে আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছিল। স্থানীয় নেতাকর্মীদের ধারণা, মনোনয়নে ভুল থাকায় কেন্দ্রীয় নেতারা মাঠ চষে বেড়ালেও দলীয় প্রার্থীর পরাজয় ঠেকাতে পারেনি। অথচ এর পূর্বের ৪টি সংসদ নিবার্চনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী বিজয়ী হলেও উপ-নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী পরাজিত হওয়ায় কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগ নেতারা হতবাক হন। উপ-নিবার্চনে চমক সৃষ্টিকারী শেখ সুজাত এবারও বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী। নেতাকর্মীদের মাঝে রয়েছে তার গ্রহণযোগ্যতা। তিনি দলীয় মনোনয়ন তিনি পাবেন বলে শতভাগ আশাবাদী তার সমর্থকরা।
এদিকে, গত ১৭ নভেম্বর হঠাৎ করেই আওয়ামী লীগের সাবেক অর্থমন্ত্রী প্রয়াত অর্থমন্ত্রী শাহ এ এমএস কিবরিয়ার তনয় বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ড. রেজা কিবরিয়া নিবার্চন করার ঘোষণা দিয়ে তিনি বলেন-জাতীয় ঐক্যফন্টের শীর্ষ নেতা ও গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেনের সাথে কথা হয়েছে, এ আসন থেকে তিনি নিবার্চন করবেন। মনোনয়ন তার নিশ্চিত। পরে ১৮ নভেম্বর তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে গণফোরামে যোগ দেন।

কিবরিয়া হত্যা মামলায় বিএনপি নেতাকর্মীরা হত্যা মামলার আসামী হওয়ায় তাকে সহজভাবে মেনে নিতে পারছেন না দলের অনেকই।
এ ব্যাপারে বাহুবল উপজেলা বিএনপির সভাপতি আকাদ্দছ মিয়া বাবুল বলেন- আমরা দীর্ঘদিন ধরে শেখ সুজাতকে নিয়ে মাঠে আছি। তবে জাতীয় ঐক্যফন্ট থেকে যদি রেজা কিবরিয়া মনোনয়ন দেওয়া হয় তাহলে কেন্দ্রের নির্দেশ আমাদের মানতে হবে।
নবীগঞ্জ পৌর বিএনপির সভাপতি ও পৌর মেয়র ছাবির আহমদ চৌধুরী বলেন- রেজা কিবরিয়ার বাবা হত্যা মামলার আসামি বিএনপি নেতাকর্মী। সেই রেজা কিবরিয়া ধানের শীষ নিয়ে নির্বাচন করলে এটা আমাদের জন্য চরম বিব্রতকর। ২০১১ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতা থাকা অবস্থায় উপ-নিবার্চনে জয়ী হয়ে সারাদেশে চমক সৃষ্টি করেছিল শেখ সুজাত মিয়া। আশা করি দল এবারও থাকে মনোনয়ন দেবে।

Share Button
Previous নির্বাচনী তফসিল স্থগিত চেয়ে হাইকোর্টে রিট
Next সিইসি নিজেই পক্ষপাতদুষ্ট, তাও দেশের স্বার্থে নির্বাচন : ফখরুল

You might also like

০ Comments

No Comments Yet!

You can be first to comment this post!

Leave a Reply