ডাকসু নির্বাচনের পুনঃতফসিল চেয়েছে ছাত্রদল

ডাকসু নির্বাচনের পুনঃতফসিল চেয়েছে ছাত্রদল

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ও হল সংসদ নির্বাচনের জন্য পুনঃতফসিল চেয়েছে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল। এছাড়া ক্যাম্পাসে সহাবস্থান নিশ্চিত করতে সাত দফা দাবি জানিয়েছে সংগঠনটি।

প্রায় ১০ বছর পর মধুর ক্যান্টিনে গিয়ে বুধবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে সংবাদ সম্মেলন করে এসব দাবি জানায় ছাত্রদল।

ছাতদলের সাত দফা দাবির মধ্যে রয়েছে, ক্যাম্পাস ও হলে সব ছাত্রসংগঠনের সহাবস্থান নিশ্চিত করতে ডাকসু নির্বাচন পিছিয়ে দিয়ে পুন:তফসিল ঘোষণা করা, ভোট কেন্দ্র হলের বাইরে করা, পাশাপাশি ভোটার হওয়ার ক্ষেত্রে বয়সসীমা বাড়ানো, ডাকসুর সভাপতির যে অগণতান্ত্রিক ক্ষমতা তার ভারসাম্য নিশ্চিত করা, সাধারণ শিক্ষার্থী ও ছাত্র সংগঠনগুলোর নেতাকর্মীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা এবং বিভিন্ন সংগঠনের নেতাকর্মীদের ওপর যে হামলা ও নির্যাতন হয়েছে তার নিরপেক্ষ তদন্ত করে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদান এবং ডাকসুর নির্বাচন পরিচালনা ও উপদেষ্টা কমিটিসহ এ বিষয়ে গঠিত সব কমিটির পুনর্গঠন।

সংবাদ সম্মেলনে দাবিগুলো তুলে ধরেন ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি রাজিব আহসান। তিনি বলেন, দীর্ঘ প্রায় তিন যুগ পর ডাকসু নির্বাচন হবে। বিষয়টিকে আমরা ইতিবাচকভাবে দেখছি, ইতিবাচক চিন্তা করছি। তবে নির্বাচনের আগে প্রশাসন আমাদের যৌক্তিক দাবিগুলো মেনে নেবে বলে আমরা আশাবাদী।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক আকরামুল হাসান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের সভাপতি আল মেহেদী তালুকদার, সাধারণ সম্পাদক আবুল বাশার সিদ্দিকী, সাহিত্য ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক মিনহাজুল ইসলাম ভূঁইয়া, বিশ্ববিদ্যালয় কমিটির উপ সাংগঠনিক সম্পাদক নাছির উদ্দীন নাছির প্রমুখ।

এর আগে বুধবার বেলা পৌনে ১১টার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের সভাপতি আল মেহেদী তালুকদার, সাধারণ সম্পাদক আবুল বাশার সিদ্দিকী, কেন্দ্রীয় সাহিত্য ও প্রকাশনা সম্পাদক মিনহাজুল ইসলাম ভূঁইয়া, সহসম্পাদক মামুন খান নেতৃত্বে ২৫/৩০ জন নেতাকর্মী মধুর ক্যান্টিনে প্রবেশ করে।

পরে কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সভাপতি রাজীব হাসান ও সাধারণ সম্পাদক আকরামুল হাসান মধুর ক্যান্টিনে যান। সেখানে এক আবেগঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়।একে অপরকে জড়িয়ে ধরেন। কেন্দ্রীয় নেতাদের ক্যাম্পাসে পেয়ে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের কর্মীরা উজ্জীবিত হন।

ক্যান্টিনে অন্য টেবিলে বসা ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক লিটন নন্দী এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাবেক সভাপতি তুহিন কান্তি দাসের সঙ্গেও করমর্দন করেন ছাত্রদলের দুই নেতা।

ছাত্রদলের নেতা-কর্মীরা টেবিলে বসে চা পান করেন। আজ তাদের কোনো বাধার মুখে পড়তে হয়নি। তবে সেখানে তাদের তিন দিক থেকে ঘিরে বিরতিহীনভাবে স্লোগান দিতে থাকেন ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা।

ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা মধুর ক্যান্টিনের ভেতরে উত্তর-পূর্ব কোণে বসেন। তাদের দক্ষিণ পাশে ছাত্রলীগ ও পশ্চিম পাশে ছাত্র ইউনিয়নসহ বাম সংগঠনের নেতাকর্মীরা বসেন।

২৮ বছর পর আগামী ১১ মার্চ ডাকসু নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

Please follow and like us:
Previous বিশ্ব ইজতেমা ১৫-১৭ ফেব্রুয়ারি
Next ইজতেমা নিয়ে উসকানিমূলক বক্তব্য দিলে ব্যবস্থা: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

You might also like

০ Comments

No Comments Yet!

You can be first to comment this post!

Leave a Reply